বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘নির্বাচন হতে হবে অবশ্যই নির্বাচনকালীন একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীন এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায়। যদি নির্বাচনকালে নিরপেক্ষ সরকার না থাকে, আমরা সে নির্বাচন মেনে নেব না। নির্বাচন নির্বাচন খেলা আর হবে না।’

রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আজ শনিবার দুপুরে এক আলোচনা সভায় সরকারকে হুঁশিয়ারি জানিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

বিএনপির মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামী লীগ এখন চেষ্টা করছে, আবার ক্ষমতায় আসতে ওই ধরনের একটি নির্বাচন দিতে, যে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারবে না। এ জন্য তারা ইভিএম চালু করেছে। এই ইভিএম তাদের আরেকটা বড় হাতিয়ার। যেখানে কী করে ভোট চুরি করা যায়, কী করে ভোট না পেয়েও নিজেকে নির্বাচিত ঘোষণা করা যায়: সেই ইভিএম তারা করছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) একটির বক্তব্যের উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, বর্তমান চিফ কমিশনার হুদা সাহেব নির্বাচনব্যবস্থাকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছেন। আজকে তিনিও বলছেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচন কমিশন গঠন করা উচিত। তিনি শ্লেষ প্রকাশ করে বলেন, যাওয়ার সময় হয়েছে তো? এখন তো আর আগের মতো প্রোটেকশন পাবে না।

সম্প্রতি সিইসির রাশিয়া সফরের প্রসঙ্গ তুলে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘কয়েক দিন আগে উনি নাকি রাশিয়াতে গিয়ে নির্বাচন পদ্ধতি দেখে এসেছেন। রাশিয়ারও একই অবস্থা। একইভাবে যে সরকারে থাকে, হয় সে একবার প্রেসিডেন্ট হয়, নয় তো প্রধানমন্ত্রী হয়। এটা আরও মজার জিনিস। একই লোক বারবার প্রেসিডেন্ট হচ্ছে, বারবার প্রধানমন্ত্রী হচ্ছে, সিস্টেমটা তা-ই। বাংলাদেশের সঙ্গে তার কোনো পার্থক্য নেই। ওটা দেখে এসেছেন উনি। দিনের বেলায় কীভাবে ভোট চুরি করা যায়, সেটার ট্রেনিং নিয়ে এসেছেন তিনি।’

নেতা-কর্মীদের আন্দোলনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, এই যে চক্রান্ত, এই যে ষড়যন্ত্র, বাংলাদেশের মানুষের অধিকার হরণ করার এই যে ভয়াবহ প্রচেষ্টা—এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। শুধু স্লোগান দিয়ে আন্দোলন হয় না। আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হতে হবে।

২০০১ সালের ১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিনটি স্মরণে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এর উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘২০০১ সালের ১ অক্টোবরের নির্বাচনই একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য শেষ নির্বাচন। যেখানে ভোটাররা নির্ভয়ে ভোট দিতে পেরেছিল। এ জন্যই আমরা এ দিনটি বরণ করছি।’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের নেতিবাচক মন্তব্যের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকার তো আমাদের দাবি ছিল না। এটা ছিল আওয়ামী লীগের দাবি, এ দাবি ছিল শেখ হাসিনার। এর জন্য আপনারা ১৭৩ দিন হরতাল করেছিলেন এবং গানপাউডার দিয়ে মানুষ হত্যা করেছিলেন। এই আওয়ামী লীগই সেদিন তাদের গুন্ডা বাহিনী দিয়ে দেশকে অচল করে দিয়েছিল। বাংলাদেশের যারা শত্রু, যারা বাংলাদেশের স্থিতিশীলতা চায় না, তারা তখন থেকেই একটি নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছিল।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ এখন সুষ্ঠু নির্বাচনকে ভয় পায়। কারণ, তারা জানে, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তারা ৩০টি আসনও পাবে না। সে জন্য তারা প্রশাসন, বিচার বিভাগ, রাষ্ট্রযন্ত্র, এমনকি গণমাধ্যমকেও নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছে। এভাবে দলে-পিষে তারা ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করছে। ভয়ংকর ভয়ংকর আইন করে, ত্রাসের সৃষ্টি করে পুরো দেশ, জনগণকে পায়ের তলে দাবিয়ে রাখছে।