জাপানের ওকিনাওয়া অঞ্চলে মডার্নার টিকা প্রয়োগ স্থগিত করা হয়েছে। এই টিকা আরও দূষণ শনাক্ত হওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটি। রোববার (২৯ আগস্ট) ওকিনাওয়ার স্থানীয় সরকার মডার্নার কোভিড-১৯ টিকার দূষিত ডোজ প্রয়োগ স্থগিতের এই তথ্য জানিয়েছে। খবর এএফপির।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় মডার্নার টিকার দূষিত ডোজ নেওয়ার পর দু’জনের প্রাণহানির ঘটনা তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানায়। এর একদিন পর রোববার ফের দূষণ শনাক্তের এই খবর এলো।

এর আগে, শনিবার জাপানের সরকার দেশটিতে মডার্নার দূষিত ডোজ শনাক্ত হওয়ার পর প্রয়োগ স্থগিতের আগে টিকা নেওয়া দু’জনের প্রাণহানি ঘটেছে বলে জানায়। যদিও তাদের মৃত্যুর কারণ এখনও জানা যায়নি।

রোববার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় ওকিনাওয়ার স্থানীয় সরকার টিকাদান কর্মসূচি আংশিকভাবে স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে। এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আমরা মডার্নার কোভিড-১৯ টিকার কিছু ডোজে বিদেশি কণা শনাক্ত হওয়ায় এর প্রয়োগ স্থগিত করছি।

স্থানীয় গণমাধ্যম বলছে, গত বৃহস্পতিবার জাপানে মডার্নার টিকায় যে দূষণ শনাক্ত হয়েছিল, এবারে শনাক্ত হওয়া সেই দূষণ সেটি থেকে ভিন্ন। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, ৩০ এবং ৩৮ বছর বয়সী দুই ব্যক্তি মডার্নার টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পর আগস্টের শুরুর দিকে মারা যান।

দূষণ শনাক্ত হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার যে তিনটি লটের টিকা স্থগিত করা হয়েছিল; সেই লটের একটি থেকে তারা টিকা নিয়েছিলেন। তাদের মৃত্যুর কারণ জানতে তদন্ত করা হচ্ছে।

টিকায় দূষিত উপাদান পাওয়ার পর গত বৃহস্পতিবার জাপানের ৮৬৩টি টিকাকেন্দ্রে সরবরাহ করা মডার্নার ১৬ লাখ ৩০ হাজার ডোজের প্রয়োগ স্থগিত করা হয়। মডার্নার স্থানীয় পরিবেশক তাকেদা ফার্মাসিউটিক্যাল কিছু শিশিতে দূষণের খবর পাওয়ার এক সপ্তাহের বেশি সময় পর এসব টিকার প্রয়োগ স্থগিতের ঘোষণা আসে।

 দেশটির সরকার এবং মডার্না বলেছে, তাদের টিকায় নিরাপত্তা অথবা কার্যকারিতা নিয়ে কোনো সমস্যা শনাক্ত হয়নি। শুধুমাত্র পূর্ব-সতর্কতা হিসেবে টিকার ডোজ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শনিবার যৌথ এক বিবৃতিতে মডার্না এবং তাকেদা ফার্মাসিউটিক্যাল বলেছে, মডার্নার টিকার কারণেই ওই দু’জনের মৃত্যু হয়েছে এই মুহূর্তে আমাদের কাছে সেবিষয়ে কোনো প্রমাণ নেই। টিকার সঙ্গে তাদের মৃত্যুর কোনো সম্পর্ক আছে কি-না তা জানতে আনুষ্ঠানিকভাবে তদন্ত পরিচালনাই গুরুত্বপূর্ণ।

ইউরোপে মডার্নার ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত টিকার শিশিতে পাওয়া ওই কণার বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে এখনও জানা যায়নি। মডার্না এবং তাকেদা ফার্মাসিউটিক্যাল বলেছে, শিশিগুলো বিশ্লেষণের জন্য একটি মানসম্মত পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে এবং আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকে এ বিষয়ে প্রাথমিক ফলাফল পাওয়া যাবে।

এর আগে, বৃহস্পতিবার মডার্নার উৎপাদনকারী স্প্যানিশ ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিষ্ঠান রোভি জানায়, টিকার নির্দিষ্ট ওই ব্যাচে দূষণের কারণ জানতে তদন্ত চলছে। টিকার এই ব্যাচ শুধুমাত্র জাপানেই বিতরণ করা হয়েছিল বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে তারা।

করোনার অতিসংক্রামক ধরন ডেল্টার উত্থানে জাপানে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে দেশটির প্রায় ৪৪ শতাংশ মানুষকে ইতোমধ্যে করোনা টিকার আওতায় পুরোপুরি আনা হয়েছে।

মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত জাপানে করোনায় মারা গেছেন ১৫ হাজার ৮০০ জনের বেশি মানুষ। দেশটির বেশির ভাগ অংশ এখনও এই ভাইরাসের কঠোর বিধি-নিষেধের আওতায় রয়েছে।