দীর্ঘদিন পর সম্মেলনের তারিখ ঘোষণায় প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে আওয়ামী লীগের অন্যতম সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগে। নতুন কমিটিতে স্থান পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ। পছন্দের পদ পেতে তদবির করছেন দলের নীতিনির্ধারকদের কাছে। স্বেচ্ছাসেবক লীগের বর্তমান কমিটিতে বেশ কয়েকজন তরুণ, পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তিসম্পন্ন দক্ষ নেতা রয়েছেন। তাঁদের মধ্য থেকেই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হবে। নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে এমন ইঙ্গিতই দেওয়া হচ্ছে।যাদের স্বচ্ছ ভাবমূর্তি আছে, শিক্ষিত এবং সাংগঠনিক দক্ষতা আছে তাদের নেতৃত্বে আনা হবে।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ গুরুত্বপূর্ণ পদে মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের আলোচনায় আছেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ হাওলাদার,স্বেচ্ছাসেবক লীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ, মোঃ বাবুল আক্তার, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক,জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।

আরও আলোচনায় রয়েছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ আনিছ উজ্জামান রানা, ঢাকা মহানগর দক্ষিন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনিসুর রহমান সরকার, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ওমর ফারুখ,শাহিন আহমেদ সাগর, সাবেক সভাপতি, বৃহত্তর লালবাগ থানা, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও মোস্তাফিজুর রহমান ইরান,সাংগঠনিক সম্পাদক,ঢাকা মহানগর দক্ষিন স্বেচ্ছাসেবক লীগ বেশ আলোচনায় আছেন।

জানতে চাইলে আবুল কালাম আজাদ বিডি পলিটিকাকে বলেন, ‘যারা দীর্ঘদিন ধরে দলের জন্য শ্রম দিচ্ছেন তাদের মধ্য থেকে নেতা নির্বাচিত হলে সংগঠন শক্তিশালী হবে।’

এ ব্যাপারে তারিক সাঈদ বলেন, ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আন্দোলন করতে গিয়ে বিএনপি জোটের আমলে কারাবরণ করেছি। যারা দুঃসময়ে দলের পাশে থেকে কাজ করেছেন, দীর্ঘদিন দলের জন্য শ্রম দিয়েছেন, সৎ, নিবেদিত, স্বচ্ছ ও পরীক্ষিত- কর্মীরাই আগামী সম্মেলনে তাদেরই সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করবেন বলে আশা করছি।’

বাবুল আক্তার বলেন, ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আন্দোলন করতে গিয়ে বিএনপি জোটের আমলে অনেক বার কারাবরণ করেছি। দলের দুঃসময়ে যারা পাশে থেকে কাজ করেছে, সৎ, নিবেদিত, স্বচ্ছ কর্মীরাই আগামী সম্মেলনে ঠাই পাবে বলে আশা করছি।

ঢাকা মহানগর দক্ষিন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ আনিছুজ্জামান রানা বলেন, আমরা চাই ত্যাগী, স্বচ্ছ ও ক্লিন ইমেজের নেতারা নেতৃত্বে আসুক।

ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ওমর ফারুখ বলেন,যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে জনগণের কল্যাণে কাজ করবেন তাদেরই নেতৃত্বে আসা দরকার। আমরাও চাই- নেতৃত্ব পাওয়ার প্রধান মানদণ্ড হোক ক্লিন ইমেজ, ত্যাগী মনোভাব, সাংগঠনিক দক্ষতা।

উল্লেখ্য, আগামী ১৬ নভেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় এবং ১১ নভেম্বর ঢাকা মহানগর উত্তর ও ১২ নভেম্বর ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় সাত বছর পর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আর ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রায় ১৩ বছর পর। ফলে এ সম্মেলন ঘিরে সংগঠনটির নেতাকর্মীদের মধ্যে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে।