ক্যাসিনোকাণ্ডে আওয়ামীলীগ থেকে বহিষ্কৃত দুই ভাই এনামুল হক ভূঁইয়া ওরফে এনু ও রুপন ভূঁইয়ার দুই বাসা থেকে নগদ টাকা পাওয়া গেছে প্রায় ৩২ কোটির মত। শুধু তাই নয়, স্বল্প সময়ে টাকার কুমির বনে যাওয়া এই দুই ভাইয়ের ১২৮টি ফ্ল্যাটের খোঁজ পেয়েছে পুলিশ। সিআইডির তদন্তে বেরিয়ে এসেছে এই বিস্ফোরক তথ্য। 

বুধবার (৮ জুলাই) সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন গণমাধ্যমকে জানিয়েছে, ‘পুরান ঢাকার আলোচিত ক্যাসিনো ব্যবসায়ী এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা অর্থপাচারের চারটি মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ হয়েছে। 

এসময় তিনি আরো জানান, যে কোনো সময় তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হবে। আমাদের তদন্তে উঠে এসেছে, পুরান ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে এনামুল ও রুপন ভূঁইয়ার নামে ১২৮টি ফ্ল্যাটের খোঁজ মিলেছে। আর ব্যাংকে এই দুই ভাইয়ের ১৯ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। ক্যাসিনো ব্যবসার মাধ্যমে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন এই দুই ভাই।’ 

তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, একসময় এই দুই ভাইয়ের জমি ও ফ্ল্যাট কেনা নেশা হয়ে দাঁড়ায় একসময়। তারা একে একে সমস্ত ঢাকা শহরজুড়ে ১২৮ টি ফ্ল্যাট কেনেন। এছাড়াও তাদের ছয়টি গাড়িরও খোঁজ পেয়েছে সিআইডি।

এর আগে ২০১৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গেণ্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি এনামুল হক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুপন ভূঁইয়াকে আটক করে র‍্যাব। তাদের বাসা থেকে প্রাথমিকভাবে ৫ কোটি ১৫ লাখ টাকার এফডিআরের কাগজপত্র পাওয়া যায় এবং ৭৩০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার জব্দ করা হয়। এসময় তাদের কর্মচারীদেরও আটক করে র‍্যাব। পরবর্তীতে দুর্নীতি দমন কমিশনও এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা করে।