কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্টের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ব্রাজিল। প্রথমার্ধে করা লুকাস পাকুয়েতার অসাধারণ  গোলে পেরুকে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পেয়ে যায় তিতের শিষ্যরা। তবে গোলটির রূপকার ছিলেন নেইমার।

গ্যাব্রিয়েল হেসুসের লাল কার্ড থাকার কারণে পাকুয়েতাকে দিয়েই সেমিফাইনালের একাদশ সাজান ব্রাজিলে কোচ তিতে। সেই পাকুয়েতাই গোল করে আবারও দলকে উৎড়ালেন। কেননা কোয়ার্টার ফাইনালে চিলির বিপক্ষে যখন গোল পাচ্ছিল না ব্রাজিল, তখন এই লুকাস পাকুয়েতাই মাঠে নেমে গোল করে দলকে জেতান।

ব্রাজিল শট নেয় ১২টি আর পেরু ৫টি। বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিলেন নেইমাররা। ম্যাচের ৫৫ শতাংশ বল ছিল তাদের পায়ে।

ম্যাচের ৩৪ মিনিটে নেইমারের অসাধারণ একটি পাস থেকে বাম পায়ের দুর্দান্ত শটে পেরুর গোলরক্ষককে কোনো সুযোগ না দিয়ে জালে বল জড়িয়ে দেন লুকাস পাকুয়েতা।  

যদিও ১৯তম মিনিটে পেরুকে রক্ষা করেন গোলরক্ষক গ্যালেস। ক্যাসিমিরো থেকে পাকুয়েতা-নেইমার হয়ে বল আসে রিচার্লিসনের কাছে। কিন্তু তার শট রুখে দেন গ্যালেস। এর আগে ১৫তম মিনিটে সুযোগ পেয়েও সোজাসুজি গোলরক্ষকের হাতে মারেন এভারটন। রিচার্লিসন থেকে ডান পাশে বল পেয়ে কাজে লাগাতে পারেননি তিনি।

পেরুর বিপক্ষে এই এক গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ব্রাজিল।

তবে, দ্বিতীয়ার্ধে পেরুর আক্রমণ ঠেকাতেই ব্যস্ত ছিলো ব্রাজিলের রক্ষণভাগ। ৫১তম মিনিটে ব্রাজিলের গোলরক্ষক এডারসন দৃঢ়তায় গোল পায়নি পেরু। ৬১তম মিনিটে আবারও ব্রাজিলের ত্রাণকর্তা গোলরক্ষক এডারসন। গার্সিয়ার শট রুখে দেন এডারসন।

ফলে প্রথমার্ধে করা একমাত্র গোল দিয়েই পেরুকে বিদায় করে টানা দ্বিতীয়বারের মত কোপা আমেরিকার ফাইনালে স্বাগতিক ব্রাজিল।

দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়ার মধ্যে জয়ী দলের বিপক্ষে আগামী ১০ জুলাই মারাকানায় ফাইনালে লড়বে ব্রাজিল। এদিন নেইমারদের সামনে সুযোগ থাকবে টানা দুবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার।