টেস্টের চতুর্থ দিনের শেষ সেশনের খেলা বৃষ্টির জন্য পরিত্যক্ত হলে খেলা গড়ায় পঞ্চম দিনে। পঞ্চম ও শেষ দিনের খেলা শুরু হতে বিঘ্ন ঘটায় বৃষ্টি। যদিও টাইগার সমর্থকেরা বৃষ্টির জন্য প্রার্থনা করেছেন। বৃষ্টি হলেই তো ম্যাচটা ড্র হয়ে যেতো। বৃষ্টিও যথা সম্ভব চেষ্টা করলো খেলা বাঁচিয়ে দিতে। কিন্তু বিধাতা চাচ্ছিলেন অন্যকিছু। বৃষ্টি থামলো, খেলাও শুরু হলো। বিরতির পরে প্রথম বলে জহিরের স্পিনে উইকেট কিপার আফসারের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। এই আউটে বোলার জহিরের চেয়ে ব্যাটসম্যান সাকিবের কৃতিত্ব বেশি।

সাকিবের আউটের পরে মাঠে আসেন মেহেদি হাসান মিরাজ। বাংলাদেশ দলের শেষ স্বীকৃত ব্যাটসম্যান হিসেবে সৌম্য সরকারকে সঙ্গ দিতে আসেন। ‍কিন্তু রশিদ খানের ঘূর্ণিতে লেগ বিফোরের ফাদে পড়ে আউট হয়ে ফিরে যান মেহেদিও।

এরপরে আসেন তাজুল ইসলাম। আবার সেই রশিদ, দ্বিতীয় ইনিংসেও তাজুলকে আউট করে তুলে নেন ৫ উইকেট। এই আউটে অবশ্য আম্পায়ার পল উইলসনের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত রশিদ ও আফগানিস্তানকে সাহায্য করে জয় ত্বরান্বিত করতে।

শেষ উইকেটে আসেন তরুণ নাইম হাসান।অন্যপাশে সৌম্য সরকার একা লড়াই চালিয়ে যেতে থাকেন আফগান বোলারদের বিরুদ্ধে। ড্র করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন বাহাতি এই হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান। তবুও এড়াতে পারেননি পরাজয়। রশিদ খানের ষষ্ঠ শিকার হয়ে সৌম্য আউট হয়ে গেলে ১৭৩ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ দল। এর মাধ্যমে ২২৫ রানের বিশাল পরাজয় বরণ করে টাইগাররা।