টেস্ট ক্রিকেট খেলেন না। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ঘরোয়া টি-২০ লিগ খেলেন নিয়মিত। তা সত্ত্বেও জাতীয় দলের হয়ে বেশ কিছুদিন টি-২০ খেলেননি ক্রিস গেইল। যদিও আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া টি-২০ বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার ইচ্ছা রয়েছে দ্য ইউনিভার্স বসের। তবে ওয়ান ডে ক্রিকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সি গায়ে তুলতে দেখা যায় তাকে।

এখন গেইল অবশ্য সীমিত ওভারের সিরিজ খেলতে ভারত সফরে না আসার সিদ্ধান্ত নিলেন। ভারত সফরে কোহলিদের বিরুদ্ধে তিনটি ওয়ান ডে ও তিনটি টি-২০ খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দল নির্বাচনের আগে ক্রিস গেইলকে পাওয়া যাবে কি না, তা ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তির কাছেই জানতে চান নির্বাচকরা। প্রাক্তন অল-রাউন্ডার রজার হারপারের নেতৃত্বাধীন নির্বাচক কমিটিকে গেইল স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন তিনি ভারত সফরে আসতে চান না।

তার মানে এই নয় যে খেলা ছাড়ার কথা মাথায় ঘুরছে গেইলের। এটা ঠিক যে কেরিয়ারের শেষ প্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছেন দ্য ইউনিভার্স বস। তবে এখনই ব্যাট-প্যাড তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিতে চান না তিনি। বরং নিজের ক্যারিয়ারকে আরও কিছুটা দীর্ঘায়িত করতে আগ্রহী গেইল। আপাতত তিনি ক্রিকেট থেকে কিছুদিন দূরে থাকতে চান। সে কারণেই চলতি বছরের বাকি সময়টা বিশ্রাম নিয়ে নিজেকে রিচার্জ করতে চাইছেন গেইল। সেইসঙ্গে স্থির করতে চান আগামী বছর নিজের ক্যারিয়ারকে ঠিক কোন দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন তিনি।

গেইল নিজেই জানান, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ আমাকে ওয়ানডে দলে রাখতে চায়। নির্বাচকরা চাইছেন আমি তরুণদের সঙ্গে মাঠে নামি। তবে আমি খেলতে চাইছি না। আপাতত এবছরের বাকি সময়টা বিশ্রাম নিতে চাই। আমি বিগ ব্যাশেও এবার খেলব না।’ এদিকে, গেইল না থাকায় ভারতের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে নিঃসন্দেহে দুর্বল হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল। চলতি সপ্তাহেই ক্যারিবিয়ান নির্বাচকরা ভারত সফরের দু’টি সীমিত ওভারের সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করবে।