মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু বৈষম্যহীন শিক্ষা ব্যবস্থার উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। পচাঁত্তরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা না হলে বহু আগেই বাংলাদেশে বৈষম্যহীন শিক্ষা এবং শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণ হতো।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে শিক্ষা দিবস-২০২০ উপলক্ষে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) কর্তৃক ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ভাবনা ও আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এমন কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। শিগগিরই ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভূক্তির আওতায় আসবে।

তিনি আরো বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণ ও খুব বেশী দূরে নয়। শিক্ষকরা দেশের সুনাগরিক গড়ার কারিগর। দেশপ্রেমিক নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করা শিক্ষকদের কাজ। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলতে শিক্ষকদের প্রতি আহবান জানান।

স্বাশিপ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. শাহজাহান আলম সাজুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার চেয়ারম্যান প্রফেসর আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, শিক্ষার মানোন্নয়ন জন্য শিক্ষার সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষে শিক্ষা খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে। তিনি শিক্ষকদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির কথা বলেন।

আলোচনায় সভায় বক্তব্য রাখেন মো. সাইদুর রহমান পান্না, অধ্যক্ষ মোনতাজ উদ্দিন মর্তুজা, অধ্যক্ষ তেলোয়াত হোসেন, অধ্যক্ষ মোকসেদুর রহমান, অধ্যক্ষ সলিম উল্লাহ সেলিম, অধ্যক্ষ মাহুবুবুর রহমান, মো. মজিবুর রহমান বাবুল, আকলিমা খাতুন, অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন মুকুল, অধ্যাপক ফজলুর রহমান প্রমুখ শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু তাঁর লিখিত বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। এ জন্য বাজেট শিক্ষা খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধির দাবি জানান। তিনি ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও, বেসরকারি শিক্ষকদের বদলি বাস্তবায়ন এবং শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের ওপর জোর দেন।