জাতীয় লিগের ষষ্ঠ রাউন্ডে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে সতীর্থ আরাফাত সানির গায়ে হাত তোলেন পেসার শাহাদাত হোসেন। খুলনা বিভাগের বিপক্ষে ঢাকা বিভাগের ম্যাচে ঘটে ওই ঘটনা। এতে শাহাদাত হোসেনকে তাৎক্ষনিক জাতীয় লিগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়া নিয়ম অনুযায়ী, বিসিবি পরিচালিত সকল টুর্নামেন্ট থেকে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পাবেন তিনি।

জানা গেছে, বল ঘষা নিয়ে তাদের মধ্যে সমস্যা হয়। পেসার শাহাদাত হোসেন বল ভালো করে ঘসে দেওয়ার জন্য বলেন আরাফাত সানিকে। সে সময় বল করছিলেন ঢাকার পেসার মোহাম্মদ শহীদ। কিন্তু সানি বল ঘসতে অপারগতা প্রকাশ করেন। আর তাতেই রেগে যান শাহাদাত হোসেন। তেড়ে এসে গায়ে হাত তোলেন আরাফাত সানির। এ সময় মাঠে থাকা অন্য ক্রিকেটাররা তাদের থামিয়ে দেন।

তার বিরুদ্ধে বিসিবির কোর্ড অব কনডাক্টের চতুর্থ ধারা ভাঙার অভিযোগ আনা হয়েছে। শাহাদাত সেই অভিযোগ মেনে নিয়েছেন। তাকে খুলনা থেকে ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। জাতীয় ক্রিকেট লিগ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা বিসিবির একজন কর্মকর্তা ক্রিকবাজকে বলেন, 'বিসিবির নিয়ম অনুযায়ী, চতুর্থ ধারা ভাঙায় তিনি এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পাবেন। সঙ্গে তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হতে পারে।'

ম্যাচ রেফারি আকতার আহমেদ জানান, তারা বিসিবির কাছে রিপোর্ট করেছে। এমন ঘটনা মানা যায় না বলে জানিয়ে দিয়েছে। তার অন্যায় চতুর্থ ধারা ভাঙার পর্যায়ে পড়ে। তবে ম্যাচ রেফারিদের তাকে সাজা দেওয়ার কোন এখতিয়ার নেই।' তিনি বলেন, এটা গালি দেওয়া কিংবা কোন ক্রিকেটারকে ইঙ্গিতপূর্ণ অবমাননার মতো বিষয় নয়। সানির গায়ে হাত তুলেছেন শাহাদাত। বিসিবির কাছে অভিযোগ পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন তারা শাস্তির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।'

শাহাদাত হোসেন এ নিয়ে বলেন, 'এবারের জাতীয় লিগে আমার আর খেলা হচ্ছে না। আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আমি জানি না, ভবিষ্যতে আমার জন্য কী অপেক্ষা করছে। এটা সত্য যে, আমি আমার ধৈর্য হারিয়ে ফেলেছিলাম। কিন্তু সেও আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছে। আমি তাকে বল ঘসতে বললে সে অপারগতা জানায়। কেন জিজ্ঞেস করতে সে খুবই খারাপ ভাষায় উত্তর দিয়েছিল। যা আমার জন্য সহ্য করা কঠিন হয়ে পড়ে।'