আসন্ন ঢাকা দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আসন ঢাকা-১০ এর সংরক্ষিত ২৭,২৮,৩০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদ প্রার্থী হয়েছেন শামসুর নাহার ভুইয়া। তিনি এবারের নির্বাচনে ষ্টীলের আলমারী মার্কা প্রতীক পেয়েছেন। এর আগে তিনি দীর্ঘ ১৪ বছর যাবত তার এলাকায় দক্ষতা ও সুনামের সঙ্গে ২৭,২৮,৩০ নং ওয়ার্ডে উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ড করেছেন। বিগত দিনে তিনি এলাকার প্রতিটি মানুষের পাশে ছিলেন সকল প্রয়োজনে।

সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান শামসুর নাহার ভুইয়া একজন বিচক্ষণ ও জনদরদী মহিয়সী নারী। ব্যক্তিগত জীবনে ৩ কন্যা ও ১ পুত্রের জননী। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স পাশ করেছেন। তার স্বামী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা । পরিবারের পাশাপাশি তিনি এলাকা নিয়েই বেশি সময় ভেবে থাকেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী হিসেবে তার লক্ষ্য হচ্ছে এলাকার লোকজনের দ্বারে দ্বারে সকল ধরনের সেবা পৌছে দেয়া। এমনকি বিগত দিনে তার কর্মকাণ্ডে এলাকাবাসী বেশ সন্তোষ প্রকাশ করছেন।

শামসুর নাহার ভুইয়া একজন সৎ, পরিশ্রমী, জনদরদী কাউন্সিলর । তিনি তার দীর্ঘ ১৪ বছর কাউন্সিলর থাকায় এলাকাতে কোনো চাঁদাবাজি, মাদক, এমনকি সন্ত্রাস বা অবৈধ কাজের অস্তিত্ব নেই। সবসময় অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে অত্যন্ত দৃঢ়তার সাথে রুখে দাঁড়িয়েছেন এবং সকলকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন।

এলাকায় জনগন রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে সবসময় পাশে পেয়েছেন শামসুর নাহার ভুইয়াকে। এলাকায় রাস্তাঘাট উন্নয়ন,পরিছন্ন রাখতে,সরকারি অনুদান, বয়স্কভাতা প্রদান সহ নারী উন্নয়নের জন্য নারীদের স্বাবলম্বী করার লক্ষে বিভিন্ন রকম আত্মকর্মসংস্থানমূলক কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন। এলাকার বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য কাজ করে তিনি বিভিন্ন সময় অসংখ্য সন্মান জনক পদক লাভ করেছেন।

আগামী প্রজন্মের শিশুদের শিক্ষার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন তিনি। এছাড়াও ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির তিনি একজন সন্মানিত সদস্য।

নির্বাচন নিয়ে শামসুর নাহার ভুঁইয়া বলেন, আমরা নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছি ইতোমধ্যে। আমি আমার এলাকার লোকজন কে ভালবাসি। বিগত দিনে আমি তাদের দোয়ায় দীর্ঘ ১৪ বছর যাবত সেবা করতে পেরেছি। আগামী দিনে আমি সকলের দোয়া ও সমর্থন চাই। বিগত দিনে আপনাদের জন্য যেভাবে সুখে দুঃখে ছিলাম এখনো আছি ভবিষ্যতেও থাকব।

আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন।