বিএনপির সংসদ সদস্যরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন, আপনি নিজে একবার হাসপাতালে আসুন। দেশের তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রীকে আপনি দেখে যান। আমরা নিশ্চিত, আপনি যদি খালেদা জিয়ার বর্তমান অবস্থা দেখেন, তাহলে আপনার মানবিক বোধ জাগ্রত হবে। আপনার মায়া হবে। খালেদা জিয়া কারও সাহায্য ছাড়া নড়ানড়া করতে পারেন না। খালেদা জিয়ার অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক।

তার ডায়াবেটিস খালি পেটেও ১১ থেকে ১২ এর নিচে নামছে না। তিনি মাত্র দুই বেলা খেতে পারেন। তাও সামান্য। তার শারীরিক অবস্থা এতটাই নাজুক যে, হাত নাড়তে পারছেন না। কারও সাহায্য ছাড়া নিজে নিজে চলতে পারছেন না। তাকে মুক্তি দিন। মুক্তি পেলে তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাবেন। আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার জামিন পাওয়া কঠিন। তাই এখন প্রয়োজন রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনে রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে তাকে দ্রুত জামিন দিন।

আজ বুধবার বিকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)-তে খালেদা জিয়াকে দেখে আসার পর বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান জাহিদ, বগুড়া-৮ আসনের সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেন এবং সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এই আহ্বান জানান। আজ বিকালে প্রায় এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করেন তারা।

পরে জিএম সিরাজ সাংবাদিকদের বলেন, আজ ১৮ মাস হলো খালেদা জিয়া একটি সাজানো মামলায় বন্দি। তার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে ইতোমধ্যে নেতারা দেশবাসীকে জানিয়েছেন। অত্যন্ত অমানবিকভাবে আজকে তাকে বন্দি করে রাখা হয়েছে। তার শরীর অবশ হয়ে গেছে। হাত-পা নাড়াতে পারেন না। নিজে চুল আঁচড়াতে পারেন না। বাথরুমে যেতে পারেন না। আমরা বিশ্বাস করি, খালেদা জিয়া রাজনৈতিক বন্দি। তাই তার জামিনের জন্য রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত দরকার। প্রধানমন্ত্রী আমলাতান্ত্রিক পরামর্শ না নিয়ে রাজনৈতিক দূরদর্শিতায় তার জামিনের ব্যবস্থা করে দিন। রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ছাড়া তার মুক্তি হবে না। আমরা সংসদ সদস্য হিসেবে আপনার কাছে অনুরোধ, খালেদার জিয়ার মুক্তির পদক্ষেপ নিন। তিনি খুই অসুস্থ, তার দ্রুত উন্নত চিকিৎসা দরকার। এজন জামিন হওয়া জরুরি।

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেন, বিশেষায়িত হাসপাতালে নিয়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা প্রয়োজন। এখানে তার চিকিৎসা সম্ভব নয়। এর আগে মঙ্গলবার একই সময়ে বিএনপির তিন সদস্যের একটি সংসদীয় প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএসএমএমইউতে সাক্ষাৎ করেন। মো. হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন উকিল আব্দুস সাত্তার এবং আমিনুল ইসলাম।তারাও দ্রুত খালেদা জিয়ার জামিনে মুক্তির দাবি জানান।